নিউজ ডেস্কঃ- 

 

আশ্রয়ণ প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগে পাঁচ কর্মকর্তাকে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করা হয়েছে। এদের একজনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলাও দায়ের করা হয়েছে। বাকি চার জনের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্র।

মঙ্গলবার (৬ জুলাই) জনপ্রশাসন মন্ত্রণলায়ের একটি সূত্র জানায়, এই কর্মকর্তাদের কেউ সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং কেউ কেউ চলতি দায়িত্বেও ছিলেন। এর মধ্যে একজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করা হয়েছে। তিনি বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সংযুক্ত উপসচিব মো. শফিকুল ইসলাম। সিরাজগঞ্জের কাজিপুরের সাবেক ইউএনও ছিলেন তিনি।

 

ওএসডি হওয়া বাকি চার কর্মকর্তা হলেন– বরগুনার আমতলীর ইউএনও মো. আসাদুজ্জামান; চাঁপাইনবাবগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. লিয়াকত আলী শেখ (বগুড়ার শেরপুরে ইউএনও ছিলেন); হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুবায়েত হায়াত (মুন্সীগঞ্জ সদরের সাবেক ইউএনও); এবং মুন্সীগঞ্জ সদরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) শেখ মেসবাহ উল সাবেরিন। এসব কর্মকর্তাকে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা করে গত কয়েক দিনে আলাদা আলাদা প্রজ্ঞাপন জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এর আগে, মুজিববর্ষ উপলক্ষে দেশের গৃহহীন ও ভূমিহীন মানুষদের আশ্রয়ের ব্যবস্থা করে দিতে উদ্যোগ নেয় সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার এই প্রকল্পের আওতায় দেশের বিভিন্ন এলাকায় হতদরিদ্র পরিবারগুলোকে ঘর করে দেওয়া হয়েছে।

এরই মধ্যে দুই পর্যায়ে এই প্রকল্পের আওতায় প্রায় সোয়া লাখ পরিবার ঘর পেয়েছে। দেশের বিভিন্ন উপজেলাতেই এসব ঘর নির্মাণের ক্ষেত্রে উঠেছে অনিয়মের অভিযোগ। কোথাও কোথাও প্রকৃত গৃহহীন ও ভূমিহীনদের ঘর বরাদ্দ না দিয়ে অন্যদের দেওয়া হয়েছে। আবার কোথাও কোথাও ঘর নির্মাণে নিম্ন মানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ পাওয়া গেছে।