নিজস্ব প্রতিবেদক :- 

 

ইসলামের জীবন ব্যবস্থায় চলার পথে পারিভাষিক শব্দের অর্থ জানা প্রয়োজন। নিম্নে তা শাব্দিক অর্থে তুলে ধরা হল। আমার জানার ক্ষুদ্র জ্ঞানে ও সংরক্ষণে তা নিম্নে তুলে ধরেছি ভূল হলে ক্ষমা দৃষ্টিতে দেখবেন।

আল্লাহ্: 

আল্লাহ্ একটি আরবি শব্দ, ইসলাম ধর্মানুযায়ী যার মানে হল “বিশ্বজগতের একমাত্র স্রষ্টা এবং প্রতিপালকের নাম”। “আল্লাহ” শব্দটি প্রধানতঃ মুসলমানরাই ব্যবহার করে থাকেন। মূলতঃ “আল্লাহ্” নামটি ইসলাম ধর্মে বিশ্বজগতের সৃষ্টিকতার সাধারনভাবে বহুল-ব্যবহৃত নাম। এটি ছাড়াও আরো কিছু নামে সম্বোধন করা হয়। মুসলমানদের ধর্মগ্রন্থ কোরআনে আল্লাহ্‌র নিরানব্বইটি নামের কথা উল্লেখ আছে; তার মধ্যে কয়েকটি হল: সৃষ্টিকতা, ক্ষমাকারী, দয়ালু, অতিদয়ালু, বিচারদিনের মালিক, খাদ্যদাতা, বিশ্বজগতের মালিক প্রভৃতি।

তবে আরবি খ্রিস্টানরাও প্রাচীন আরবকাল থেকে “আল্লাহ” শব্দটি ব্যবহার করে আসছেন। বাহাই, মাল্টাবাসী, মিজরাহী ইহুদি এবং শিখ সম্প্রদায়ও “আল্লাহ” শব্দ ব্যবহার করে থাকেন।

 

ইসলাম:

ইসলাম (আরবি ভাষায় আল্‌-ইসলাম্‌) একটি একেশ্বরবাদী ধর্ম। “ইসলাম” শব্দের অর্থ “আত্মসমর্পণ”, বা একক স্রষ্টার নিকট নিজেকে সমর্পণ। খ্রিষ্টীয় সপ্তম শতকে আরবে নবী মুহাম্মদ এই ধর্ম প্রচার করেন। কুরআন ইসলামের মূল ধর্মগ্রন্থ। ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসীদের মুসলমান বা মুসলিম বলা হয়। কুরআন আল্লাহর বাণী এবং তার কর্তৃক নবী মুহাম্মদের নিকট প্রেরিত।

 

কুরআন:

কুরআন শব্দের উৎপত্তি ক্বারউন নামক শব্দ থেকে যার অর্থ পঠিত, যা অধিক পাঠ করা হয়, অন্য অর্থ মিলিত। সারা বিশ্বের মুসলমানগণ কুরআন অধিক পরিমাণে তিলাওয়াত করেন তাই এর নামের অর্থ পঠিত। কুরআনে আল্লাহ্ জ্ঞান-বিজ্ঞানের যাবতীয় বিষয় একত্রিত করেছেন, তাই এর নামের অর্থ মিলিত।

 

মুসলমান:

মুসলমান বা মুসলিম (আরবি -অর্থ আত্মসমর্পণ, অনুগত)হলো সেই লোক যে নিজের ইচ্ছাকে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করে ৷বর্তমানে মুসলিম বলতে একেশ্বরবাদী ইব্রাহিমীয় ধর্ম ইসলামের অনুসারিদের বা ইসলাম পালনকারীদের বুঝানো হয় বা যারা ইসলামের অনুসরণ করে তাদের মুসলমান বা মুসলিম বলা হয়। মুসলমানেরা পবিত্র গ্রন্থ কুরআনকে আল্লাহর বাণী বলে মনে করে এবং ইসলামের নবী ও রাসূল মুহাম্মদের উপর অবতীর্ণ হয়েছে। সকল মুসলমানরা ঐতিহ্যবাহী বিবরণীতে বর্ণিত মুহাম্মদের শিক্ষা (সুন্নাহ) ও হাদিস অনুসরণ করে। মুসলিম আরবি শব্দ যার বাংলা অর্থ আত্মসমর্পণকারী এবং এর বাংলা পরিভাষা হিসেবে মুসলিম ও মুসলমান দুটি শব্দই সমান ভাবে ব্যবহার হয়।

 

সূরা:

সূরা হচ্ছে ইসলামী পরিভাষায় মুসলমানদের ধর্মগ্রন্থ কুরআনের এক একটি অধ্যায়ের নাম। তবে এটি সাধারণ পুস্তকের অধ্যায়ের মত নয় বরং বিশেষভাবে কেবল কুরআনের বৈশিষ্ট্যের জন্যই এর উৎপত্তি। তাই এটি প্রকৃত অর্থেই কুরআনের একটি পরিভাষা, যাকে কেবল কুরআনের দৃষ্টিকোণ থেকেই ব্যাখ্যা করা যায়। কুরআনে ১১৪টি সূরা রয়েছে, প্রত্যেকটি কে আয়াত বিভক্ত করা হয়েছে।

কুরআনের প্রথম সূরা হলো “আল ফাতিহা” এবং শেষ সূরার নাম “আন-নাস্”। দীর্ঘতম সূরা হলো “আল বাকারা” যেখানে ২৮৬ টি আয়াত রয়েছে এবং ক্ষুদ্রতম সুরা সুরা আল কাউসার । সূরা “তাওবা” ব্যতীত সকল সূরা শুরু হয়েছে বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম দিয়ে এবং সুরা আন নামলে মোট দু’বার বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম আছে । একটি সূরা বা এর অংশবিশেষ অবতীর্ণ হওয়ার প্রেক্ষাপট বা কারণকে বলা হয় শানে নুযূল।

ইসলাম মানুষের চলার পথের সন্ধানদাতা, উন্নত, সুখী ও সমৃদ্ধশালী জীবন এবং আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের সন্তুষ্টি অর্জন তথা মানবজীবনের চরম লক্ষ্য হাসিলের একমাত্র পন্থা। এর ব্যাপ্তি জীবনের সর্বক্ষেত্রে। ইসলাম মানুষের সঠিক পথের দিশারী, দুনিয়া ও আখেরাতের সর্বাঙ্গীন ও পূর্ণাঙ্গ একমাত্র জীবন ব্যবস্থা।