আফজাল হোসেন তুহিনঃ- 

 

ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের চলমান হামলায় এ পর্যন্ত প্রায় ১৯২ জন প্রাণ হারিয়েছেন, যাদের মধ্যে ৫৮ জনই শিশু।

বিশ্বের দীর্ঘস্থায়ী এ মানবিক সংকটের সময় কোথায় আজ জাতিসংঘ, কোথায় আজ বিশ্বের ক্ষমতাধর মুসলিম রাষ্ট্রগুলো? কোথায় আজ মানবাধিকার সংগঠনগুলো? বাংলাদেশে কিছু হলেই বিবৃতি দেওয়ার জন্য বেড়িয়ে আসে, আজ সেই মানবাধিকার সংগঠনগুলো কোথায়। কোথায় আজ বিশ্বের উন্নত রাষ্ট্রগুলো। কোথায় আজ সুখি দেশগুলো? কোথায় আজ ক্ষমতাধর রাষ্ট্রের বিশ্ববিবেক?

বাংলাদেশ এবং ইসরায়েলের মাঝে কোন ধরনের কূটনৈতিক এবং বাণিজ্যিক সম্পর্ক নেই। বাংলাদেশ ইসরায়েলকে নৈতিক রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকার করে না এবং বাংলাদেশী নাগরিকদের ইসরায়েলে ভ্রমণে সরকারী নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। বাংলাদেশের পাসপোর্ট ইসরায়েল ব্যতীত বিশ্বের সকল দেশ ভ্রমণের জন্য বৈধ।বাংলাদেশ একটি সার্বভৌম প্যালেস্টাইন রাষ্ট্র সমর্থন করে এবং ইসরায়েলের “অবৈধভাবে প্যালেস্টাইন দখলের” সমাপ্তি দাবি করে।
বাংলাদেশ পৃথিবীর একমাত্র রাষ্ট্র যেটি ইসরায়েলের সাথে সকল প্রকার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ বাণিজ্যের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পরবর্তী সময়ে যেসব রাষ্ট্র বাংলাদেশকে সর্বপ্রথম স্বীকৃতি দেয়, ইসরায়েল তাদের মধ্যে অন্যতম। আরব দেশসমূহ স্বীকৃতি দেয়ার আগেই ইসরায়েল বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদান করে। ইসরায়েল সরকার এবং ইসরায়েলী নাগরিক সকলেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলাদেশকে সমর্থন করেছিলো। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে নতুন স্বাধীনতা লাভকারী বাংলাদেশকে ইসরায়েল আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি প্রধান করে, যা বাংলাদেশ সরকার নিরপেক্ষভাবে প্রত্যাখ্যান করে।প্রতিবাদ স্বরুপ তা করে দিয়ে গেছেন বঙ্গবন্ধু। ৯ মাস যুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত বাংলাদেশ যদি তা করে দেখাতে পারে তাহলে পারমাণবিক ক্ষমতাধর মুসলিম রাষ্ট্রগুলো কেন ইসরায়েলের বিরোদ্ধে দাড়াতে পারবে না? কেন ফিলিস্তিনের পাশে থাকতে পারবে না?

ফিলিস্তিনের এই সংকটকালে দেশটিকে সমর্থন নিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ফিলিস্তিনের আল-আকসা মসজিদে ইসরাইলি বাহিনীর হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ইসরাইলি হামলায় হতাহতদের প্রতি শোক ও সমবেদনা জানিয়ে ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসকে চিঠি পাঠান তিনি। শেখ জারাহ থেকে ফিলিস্তিনি পরিবারগুলোকে উচ্ছেদ করে সেই এলাকা দখল করে ইসরাইলি বাহিনী মানবাধিকার ও আন্তর্জাতিক আইনের চরম লঙ্ঘন করেছে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফিলিস্তিনকে সহযোগিতা করার জন্য চিকিৎসা সামগ্রী ও ঔষধ পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। ছোট্ট বাংলাদেশ যদি মানবতার হাত বাড়িয়ে দিতে পারে, বিপদের সময় ফিলিস্তিনের পাশে থাকতে পারে তাহলে মধ্যপ্রাচ্যের মুসলিম প্রধান দেশগগুলো কেন পারবে না? যে রাষ্ট্রের মানবতা নাই, সেই রাষ্ট্র উন্নত হতে পারে না। যে রাষ্ট্রের মানবতা নাই সেই রাষ্ট্র সুখি দেশের তালিকায় থাকতে পারে না।