নিজস্ব প্রতিনিধিঃ- 

 

ছাগলনাইয়ায় ভালোবেসে বিয়ে করে ২৪ দিনের মাথায় স্ত্রীকে মেরে আহত করে রাস্তায় পেলে দেয় স্বামী। ঘটনাটি ঘটেছে ছাগলনাইয়া উপজেলার শুভপুর ইউনিয়নের কুয়েত পল্লিতে।

উল্লেখ্য যে ছাগলনাইয়ার কুয়েত পল্লীর বাসিন্দা নুরের নবীর পুত্র সাইফুল ইসলাম নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে টমটম চালানোর সুবাদে পরিচয় হয় আকলিমা আক্তার ১৯ পিতা মৃত নুরুল ইসলাম সাং নরোত্তমপুর নামের মেয়ের সাথে। সেই থেকে তাদের মাঝে শুরু হয় মোবাইলে প্রেমের সম্পর্ক দীর্ঘ ২ বছর এই সম্পর্কের কারণে দুইজন সিদ্ধান্ত নেয় তারা একে অপরকে বিয়ে করবে । এক পর্যায় গত ৩০ শে জুলাই সাইফুল ইসলাম সে খান থেকে মেয়ে আকলিমা আক্তার কে নিয়েআসে ছাগলনাইয়ার শুভপুর ইউনিয়নের কুয়েত পল্লীতে এবং ৩১ জুলাই ইসলমী শরিয়া অনুযায়ী কুয়েত পল্লীতে তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের দুইদিনের মাথায় শুরুকরে তার উপর অমানুষিক নির্যাতন স্বামী সাইফুল ইসলাম শাশুড়ী খাদিজা বেগম, এবং ননদী সাজেদা আক্তার। তার দোষ একটাই বাবার বাড়ি হইতে খালি হাতে কেন আসলো।

এক পর্যায় গত ২১ শে আগষ্ট রাত আনুমানিক ৪ টার দিকে তাকে মেরে বেহুসকরে রাস্তায় পলেদেয়। সকালে আশপাশের লোকজন দেখতে পায় রাস্তার পার্শে পড়ে রয়েছে সেখান থেকে আবদুল হালিম নামের জৈনিক ব্যক্তি রাস্তাথেকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আশ্রয় দেয় এবং ডাক্তার দেখায়। গতকাল মঙ্গলবার এই ঘটনা এলাকায় জানাজানি হয় এবং ঘটনাটি চেয়ারম্যান আবদুল্লা সেলিম ও জানে পরে সজীব মেম্বারের জিম্মায় থাকে মেয়ে এবং ছেলে।

একই দিন বিকালে মেয়েটি বাদি হয়ে ছাগলনাইয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে এ ব্যাপারে ছাগলনাইয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ সহিদুল ইসলাম এবং ওসি তদন্ত কাজী মোঃ রফিকুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তারা জানান আমরা প্রকৃত বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখছি।