নোয়াখালী (জেলা) প্রতিনিধিঃ- 

 

দুই মাসের মাথায় নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি খিজির হায়াত খানের ওপর আবার হামলার অভিযোগ উঠেছে।

এই ঘটনায় খিজির হায়াত খান (৭১) নিজে বাদী হয়ে শুক্রবার মামলা করেছেন বলে কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি মীর জাহেদুল হক রনি জানান।

 

মামলায় কোম্পানীগঞ্জ পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. রাসেল ও একই ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি আইনাল মারুফকে আসামি করা হয়েছে।

 

মামলার এজাহারে খিজির হায়াত খান অভিযোগ করেন, বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে তিনি অটোরিকশাযোগে নিজ বাড়ি থেকে বসুরহাট বাজারে আসছিলেন। “আসার পথে বদু কেরানীর পোল এলাকায় কাউন্সিলর মো. রাসেল ও ওয়ার্ড ছাত্রলীগ সভাপতি আইনাল মারুফের নেতৃত্বে ৮-১০ জন সন্ত্রাসী তার রিকশার গতিরোধ করে। এক পর্যায়ে তাকে রিকশা থেকে নামিয়ে বেধড়ক মারধর করে।”

পরে এলাকাবাসী এগিয়ে গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায় বলে মামলায় বলা হয়।

ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. রাসেল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, “জমিজমা নিয়ে পূর্ব বিরোধের কারণে এবং মেয়র আবদুল কাদের মির্জার সাথে থাকায় আমাকে এই ঘটনায় জড়ানো হচ্ছে।”

 

এর আগে গত ৮ মার্চ বসুরহাটের রূপালী চত্বরে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের পাশে খিজির হায়াত খানের ওপর হামলার অভিযোগ ওঠে।

ওই অভিযোগে কোম্পানীগঞ্জ পৌর মেয়র আব্দুল কাদের মির্জাকে প্রধান আসামি করে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন খিজির হায়াত খান।