সাজ্জাদ হোসেন রাকিব :- 

 

বিশ্ব জুড়ে যে করোনার মহামারী বাংলাদেশ তার দ্বিতীয় ধাপের আক্রমণ ইতোমধ্যেই বেশ পরিলক্ষিত করার মতোই। করোনার দ্বিতীয় থাবায় ফেনীর মধ্যে একদিনে সর্বোচ্চ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৮ জন রোগী।

নোয়াখালীর আব্দুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে ফেনীর ১৫৫টি নমুনা পরীক্ষা করে ৫৮টি শনাক্ত করা হয়। নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার প্রায় ৩৮ দশমিক ৬ শতাংশ। অর্থাৎ প্রায় প্রতি দুটি নমুনার মধ্যে একটা পজিটিভ।

শনাক্তকৃতদের মধ্যে ফেনী সদরে ১৫ জন, ছাগলনাইয়ায় ১৭ জন, পরশুরামে ১১জন, দাগনভূঞায় ৬জন, সোনাগাজীতে ৭জন, ফুলগাজীতে ১জন এবং ফেনী জেলার বাহিরের রয়েছে একজন রোগী। আক্রান্তদের মধ্যে বিদেশগামী যাত্রী রয়েছে ১২জন।

৩০মার্চ (মঙ্গলবার) এই তথ্য নিশ্চিত করেন ফেনী জেলা সিভিল সার্জন’র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, “প্রতি সপ্তাহে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের গতিধারা দেখে উচ্চ সংক্রমিত ঝুঁকিপূর্ণ জেলা চিহ্নিত করি। গত ১৩ই মার্চ তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে আমরা উচ্চ সংক্রমিত জেলা পাই মাত্র ছয়টি।

পরবর্তী ১ সাপ্তাহের ব্যবধানে ২০ মার্চ এ সংখ্যা ২০টি এবং ২৪ মার্চ বিশ্লেষণে এ সংখ্যা বেড়ে ২৯ টিতে দাড়ায়।”

উচ্চ সংক্রমিত ঝুঁকিপূর্ণ জেলা গুলোর মধ্যে রয়েছে- ফেনী, ঢাকা, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, চাঁদপুর, নীলফামারী, সিলেট, রাজশাহী ইত্যাদি।

অন্যদিকে, ফেনীতে বেশ রমরমা অনুষ্ঠানে চলছে বানিজ্য মেলা। প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ মেলায় শপিং করতে যায়। মাস্ক ছাড়া প্রবেশ নিষেধ আইন থাকলেও মেলার ভিতরে উপলব্ধি করাই যাচ্ছে না জনসাধারণের সচেতনতা। স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করেই ঘুরাঘুরি করতে দেখা যাচ্ছে জনসাধারণ কে।

বানিজ্য মেলা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন ফেনীর সচেতন ব্যবসায়ী সমিতিসহ সচেতন নাগরিকগন।

 

টিবিএন/ আইএইচএস