নিজস্ব প্রতিবেদকঃ- 

ফেনীর ফুলগাজীতে অসহায় হতদরিদ্র এক পরিবারের সম্পত্তি দখলে নিতে এলাকার প্রভাবশালী ওসমান আলী, ইব্রাহিম ও জসিম কর্তৃক অসহায় পরিবারের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ১৫-২০ জনের একটি সন্ত্রাসী দল বাড়িঘর ভাঙচুর করে পরিবারের সদস্যদের লাঠি ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে পিটিয়ে জয়নাব বিবি (৫৫), আবদুল আলী (৬৫), তানজিদা আক্তার (২০) কে গুরুতর আহত করে।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ফুলগাজী থানা পুলিশ পৌঁছে ১১ জনকে গ্রেপ্তার করে।

জানা যায়, গত ২৮ মে সকালে উপজেলার উত্তর বরইয়া গ্রামের আব্দুল আলীর বসতবাড়িতে হামলা করে ১৫-২০ জন ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী। এই সময় এলাকার লোকজন পুলিশকে খবর দিলে ফুলগাজী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ আবু তাহের ও এসআই মোঃ মনির হোসেন’র নেতৃত্বে থানা পুলিশ ১১ জনকে গ্রেপ্তার করে। বাকিরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়।

গ্রেপ্তারকৃত আসামিরা হচ্ছেন জিএমহাট ইউনিয়নের শরীফপুর গ্রামের বোরহান উদ্দিনের ছেলে নুরুদ্দিন (১৭), একই গ্রামের মোহাম্মদ জসিম উদ্দিনের ছেলে মেহরাব হোসেন (১৭), রফিকুল আলমের ছেলে মোহাম্মদ শিহাব (১৭), আজিজ উল্লাহ ছেলে মোহাম্মদ রিয়াদ হোসেন (১৭) ও সঞ্জীতের ছেলে সৌরভ (১৭) কে বহিরাগত সন্ত্রাসী কিশোর গ্যাং হিসেবে আটক করে।

এছাড়া হামলাকারী ওসমান আলী প্রকাশ কালা মিয়া (৭০)সহ তার ৪ সন্তান মোঃ ইব্রাহীম (৪০), জসিম উদ্দিন (৪৫), মোঃ সবুজ (৩৫), মোঃ ইসমাইল হোসেন (৩০) ও গোসাইপুর গ্রামের আবদুর রাজ্জাকের ছেলে মোঃ আজিম (২৮)কেও আটক করা হয়েছে।

ফুলগাজী থানার অফিসার ইনচার্জ এএনএম নুরুজ্জামান ১১ জনকে আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আটককৃত আসামিরা জোরপূর্বক প্রতিপক্ষের বসতবাড়িতে বহিরাগত সন্ত্রাসী দিয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এই সংক্রান্ত একটি মামলা ফুলগাজী থানায় রুজু হলে ফুলগাজী থানা পুলিশ তাদেরকে আটক করে আদালতে সোপর্দ করে।

সন্ত্রাসী হামলায় আহত ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য খোরশেদ আলম জানান, তারা গত দশ পনের বছর যাবত আমাদের উপর বিভিন্ন ধরনের নির্যাতন করে আমাদের জায়গা দখল করে নেওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছে। এ পর্যন্ত ২৫-৩০ বার আমাদের পরিবারের উপর হামলা করেছে। জায়গাটি আমাদের নামে বি এস, সি এস খতিয়ান এ রয়েছে। এনিয়ে মামলায় ২০২০ সালে কোর্ট আমাদের পক্ষে রায় দিয়েছে। কিন্তু তারা কোনোভাবেই কোর্টের রায় মানতে নারাজ, আমাদেরকে মারধর, জুলুম, নির্যাতন করে ও হত্যার হুমকি দিয়ে জায়গা দখলের চেষ্টা করে যাচ্ছে।