স্টাফ রিপোর্টার :-

 

বাগেরহাটের শরণখোলার উপজেলায় মিজান ফরাজি (৪০) নামের এক ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতার হাত পা ভেঙ্গে দিয়েছেন ওয়ার্ড কমিশনার নাসির ও তার সহযোগীরা।

মিজান খোন্তাকাটা ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। মঙ্গলবার রাতে পূর্ব খোন্তাকাটা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার রাতে আমতলী বাজার থেকে ফেরার পথে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে ওত পেতে থাকা নাসীর বাহিনীর ১০-১৫ জন সন্ত্রাসী রড, হাতুড়ি, দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে পিটিয়ে দুই হাত ও দুই পা ভেঙ্গে এক পায়ে রড ঢুকিয়ে দিয়ে অর্ধমৃত অবস্থান সড়কের পাশের ড্রেনে ফেলে চলে যায়। তার আত্ম চিৎকারে পথচারী শুনতে পেয়ে তাদের আত্মীয় স্বজন দের খবর দেয় পরক্ষণে তাকে উদ্ধার করে শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা সদর হাসপাতালে রেফার্ড করেন।

মুমূর্ষ অবস্থায় মিজানুর রহমান বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন খান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজু সর্দারের চক্রান্তে আমার উপর এই হামলা। আমি বাড়ি ফেরার পথে নাসির মেম্বারের নেতৃত্বে আমার উপর অতর্কিত হামলা করে, স্বপন, রিপন, রাব্বি, রাকিব, নয়ন, সহ পনের বিশজন আমায় রড দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটায় পায়ের ভেতর রড ডুকিয়ে দেয় আমার অবস্থা খারাপ হয়ে গেলে ড্রেনে মধ্যে ফেলে দিয়ে যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যাক্তি জানান, সাধারণ সম্পাদকের ইন্ধনে নাসির বাহিনী এলাকায় সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছেন তাদের বিরুদ্ধে কথা বলা এমনকি প্রতিপক্ষ হয়ে ভোটে দাঁড়ানোর সাহস পায়না এলাকার মানুষ । পরোক্ষ ভাবে সুন্দর বনের জলদস্যুদের নিয়ন্ত্রণ করে এই নাসির বাহিনী।

 

আহতের বোন জানান, পূর্বে তাদের বিরুদ্ধে থানায় সাধারণ ডায়েরি করা ছিলো। এলাকার চিহ্নিত মাদক কারবারি
সন্ত্রাসী আমার ভাইকে হত্যার উদ্দেশ্যে এমন হামলা চালায়।

এ বিষয়ে শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ সাইদুর রহমান বলেন, এখন পর্যন্ত হামলার বিষয়ে থানায় কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সারাদেশে থেকে বিভিন্ন এক ভিন্ন আইন প্রতিষ্ঠা হয়েছে খোন্তা-কাটায় নাসির বাহিনীর এই সন্ত্রাসের রাজত্বের অবসান চান এলাকার সাধারণ মানুষ।