সিলেট নগরজুড়ে মশার উপদ্রব বৃদ্ধি পেয়েছে। মশার এই যন্ত্রণায় রীতিমতো অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন নগরের ২০ লক্ষাধিক মানুষ। বাজার থেকে কেনা সাধারণ কয়েল বা স্প্রে দিয়েও মশার উপদ্রব ঠেকানো যাচ্ছে না। নগরবাসী বলছেন, সাধারণত বর্ষাকাল শুরু হলেই মশার উপদ্রব বৃদ্ধি পায়। কিন্তু এ বছর বর্ষাকাল শুরুর আগেই সিলেট নগরে বেড়েছে মশার উপদ্রব। প্রায় মাসখানেক ধরে নগরজুড়ে মশা রাজত্ব বিস্তার করছে। রাতে তো বটেই দিনেও মশার যন্ত্রণায় বাসাবাড়ি এমন কি অফিসেও টেকা দায় হয়ে পড়েছে।

এ অবস্থায় নগরবাসী মশার উপদ্রব থেকে রক্ষা পেতে সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) এর কাছে জোরালো উদ্যোগ নেয়ার দাবি জানিয়েছেন।

মশার যন্ত্রণায় ফেসবুকে সমালোচনা শুরু হয়েছে মেয়র আরিফুল হকের বিরূদ্ধে। সিলেট নগরের বাসিন্দা মামুনুর রশিদ ফেসবুকে লিখেছেন- “হায়রে “মশা” মনে খর সিলেট সিটির ভিতর ছাড়িয়া গাওত যাইতাম গি। খালি মশার যন্ত্রণায়।

নগরের আরেক বাসিন্দা ফেসবুকে লিখেছেন অভিনন্দন – “সিলেট সিটি কর্পোরেশনে রেকর্ড সংখ্যক মশা উৎপাদন। অভিনন্দন সিলেট সিটির মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

ফুজায়েল আহমেদ জনি ফেসবুকে পোষ্ট করে লিখেন- “রাইতের বেলা ঘরে থাকা যায় না মশার যন্ত্রনায়, আর বাইরে রাস্তায় যাওয়া যায়না বেওয়ারিশ কু্ত্তার যন্ত্রনায়। ক‌ই যাই বলেন তো মেয়র সাপ ?”

নগরের জালালাবাদ, ফাজিলচিশত, কালীবাড়ি, মদিনা মার্কেট, আখালিয়া, বন্দর, চৌহাট্টা, জিন্দাবাজারসহ বিভিন্ন এলাকার মানুষের সঙ্গে কথা বলে মশা উপদ্রব নিয়ে অভিযোগ পাওয়া গেছে। নগরবাসীর অভিযোগ গত ২০ দিন যাবত মশার উৎপাত বেড়ে গেছে। বাসা-বাড়ি, অফিস-আদালত সব জায়গায়ই মশার উৎপাত বেড়েছে। এমনকি ফুটপাত ও পাবলিক প্লেসেও মশার যন্ত্রণা থেকে রেহাই পাচ্ছেন না নগরবাসী।