শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচেই মাথায় আঘাত পেলেন। এরপর আর মাঠে নামতে পারেননি। সাইফউদ্দিনের কনকাশন সাব হিসেবে মাঠে নামলেন তাসকিন আহমেদ। ওয়ানডে ক্রিকেটে ইতিহাসের পাতাতেই ঠাঁই করে নিলেন তারা দু’জন।

 

সাইফউদ্দিন শেষ ম্যাচে আর মাঠে নামতে পারেননি। তাসকিনই খেলেছিলেন। তবে, সাইফউদ্দিন দাবি করছেন, তিনি কিছুটা সুস্থ ছিলেন। খেলতে পারতেন শেষ ম্যাচে। যদিও টিম ম্যানেজমেন্ট ঝুঁকি নিতে চায়নি বলেই আর মাঠে নামা হয়নি।

ডান হাতি পেসারই নন শুধু, ব্যাট হাতেও ঝড় তোলার সামর্থ্য রাখেন। যে কারণে একজন খাঁটি পেস অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিন; কিন্তু টানা ইনজুরির ধকল সামলে আগামী দিনে কতদুর যেতে পারবেন, সেটাই দেখার বিষয়।

 

সোমবার থেকে শুরু হচ্ছে জমজমাট প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে অনুষ্ঠিতব্য এই লিগ নিয়ে অন্য ক্রিকেটারদের মত স্বপ্ন বুনছেন আবাহনীতে খেলা সাইফউদ্দিনও। তিনি চান নিজেকে একজন খাঁটি ফিনিশার হিসেবে গড়ে তুলতে। শুধু তাই নয়, এখন যে পজিশনে (৭ নম্বরে) ব্যাট করতে নামেন, টিম ম্যানেজমেন্ট সুযোগ দিলে আরও উপরেও ব্যাট করতে নামতে পারবেন তিনি।

আজ মিরপুরে অনুশীলন করতে নামার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে সাইফউদ্দিনের কথোপকথন তুলে ধরা হলো এখানে…

 

প্রশ্ন : শরীরের অবস্থা, ইঞ্জুরি, কনকাশন, এখন কেমন আছেন? 

সাইফউদ্দিন : আলহামদুলিল্লাহ অনেক ভালো। আমার মনে হচ্ছিল শেষ ওয়ানডে খেলতে পারতাম। ফিজিও ঝুঁকি নেননি তাই খেলতে পারিনি।

 

প্রশ্ন : আবাহনীতে ৫-৬ নম্বরে ব্যাটের সুযোগ পেলে কী করবেন?

 

সাইফউদ্দিন : সুযোগ আসবে না, এটাই বাস্তবতা। শুধু শুধু বলে তো লাভ নেই! ঘুরে-ঘারে সাতেই ব্যাট করতে হবে। অবশ্যই টিম ম্যানেজমেন্ট আফিফের আগে আমাকে নামাবে না। তারপরও এক-দুইটা ম্যাচে সুযোগ দেওয়ার জন্য টিম মেনেজমেন্টকে অনুরোধ করবো। যদি দল সুযোগ দেয়, যেহেতু গতবার আবাহনীর হয়ে ব্যাট হাতে দারুণ অবদান রেখেছি। যদি উনারা মনে করে তাহলে অবশ্যই আমি ওপরে খেলতে আগ্রহী।

প্রশ্ন : ফিনিশার হিসেবে সন্তুষ্টি (ব্যাট হাতে)

 

সাইফউদ্দিন : সন্তুষ্টি বললে একেবারেই না। কিছুই করতে পারিনি, এটা সত্য। আর উন্নতির তো শেষ নেই। উন্নতির কথা মুখে বললে হবে না। নিজের তাগিদ থাকতে হবে। আর ম্যাচ ও অনুশীলনে অনেক সুযোগ পেতে হবে।

 

আজ-কাল বললাম আর এক সপ্তাহ বা মাসের মধ্যে সেরা ফিনিশার হয়ে যাব- এটা কঠিন। হয়ত ঘরোয়া ক্রিকেটে নিজেকে কিছুটা প্রমাণ করতে পেরেছি। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ফিনিশারের ভূমিকা পালন করতে হলে আরও বড় ভূমিকা পালন করতে হবে, আরও অনেক বেশি সুযোগ পেতে হবে; সেটা প্র্যাকটিস হোক বা ম্যাচে হোক।

 

প্রশ্ন : প্রথম ম্যাচ তো পারটেক্সের বিরুদ্ধে। অনেক দুর্বল প্রতিপক্ষ। কিভাবে শুরু করতে চান?

 

সাইফউদ্দিন : গতবার একটা ম্যাচ হয়ে ডিপিএল বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। প্রথম ম্যাচে হোঁচট খেয়েছি এই মাঠেই। ৬০ রানে পারটেক্সের বিরুদ্ধে ৫ উইকেট পড়ে যায়। এরপর মোসাদ্দেক ও মুশফিক ভাই পার্টনারশিপ গড়ে, লোয়ার অর্ডারে আমিও কুইক ৪০ রান করি।

 

ওদিনের মত ম্যাচ বেঁচে যাই। তাই তাদের হালকাভাবে নেওয়ার কিছু নেই। ঘরোয়া ক্রিকেটে সবাই ভালো খেলে। অনেকদিন ধরে খেলা নেই, সবাই ভালো খেলার জন্য মুখিয়ে থাকবে। জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ব আশা করি।