এক সময় বাংলাদেশ ঋন নিতো এখন বাংলাদেশ ঋন দিবে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। রিজার্ভ থেকে শ্রীলংকাকে ২০ কোটি ডলার দিচ্ছে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের জন্য একেবারেই নতুন এক অভিজ্ঞতা হতে যাচ্ছে এই কারেন্সি সোয়াপ বা মুদ্রা বিনিময়। বৈদেশিক মুদ্রার চাহিদা পূরণ করতে হিমশিম খাওয়া শ্রীলঙ্কা বন্ধুপ্রতিম বাংলাদেশের শরাণাপন্ন হলে বাংলাদেশ তাঁর রিজার্ভ থেকে ২০ কোটি ডলার ধার দেয়ার সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে। এই পুরো প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত থাকবে বাংলাদেশ ব্যাংক। বলে রাখা ভালো এই ধরনের বিনিময় বাংলাদেশের জন্য প্রথম হলেও বিশ্বস্বীকৃত এই নিয়মে তেমন ঝুঁকি নেই যদিনা ঋণগ্রহীতা দেশ যথাসময়ে টাকা পরিশোধ করতে অপারগতা দেখায়।

তবে এই পরিমাণ টাকা পরিশোধে শ্রীলঙ্কাকে ২ শতাংশ সুদসহ তিনমাসের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে। তরফ এই পরিমাণ ডলার পেতে শ্রীলঙ্কাকে গ্যারান্টি হিসেবে সমপরিমাণ শ্রীলঙ্কান রুপি বাংলাদেশ ব্যাংকের কোষাগারে জমা রাখতে হবে। এছাড়াও গ্যারান্টি হিসেবে থাকবে শ্রীলঙ্কার সরকার ও কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

তবে শ্রীলঙ্কা যদি এই টাকা পরিশোধ করতে ব্যর্থ হয় তখন কি হবে? সেই সময়ে দুই দেশের মধ্যে ঘটা আমদানি-রপ্তানি থেকে সেই টাকা সমন্বয় করে নেয়া হবে।

অনেকে প্রশ্ন করতে পারেন যে এখানে বাংলাদেশের কি লাভ? লাভ হলো এতে দেশের সুনাম বাড়বে। কান্ট্রি রেটিং এ বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। একই সাথে শ্রীলঙ্কার রেটিং ও কমে যাবে।