স্পোর্টস ডেস্ক :- 

 

আইপিএল টিমগুলির উপর করোনা যে ভাবে থাবা বসিয়েছে, তার জেরেই একের পর এক ম্যাচ বাতিল হয়ে যেতে শুরু করে। স্বভাবতই টুর্নামেন্ট এগিয়ে নিয়ে যাওয়াটাই অসম্ভব হয় পড়ে। সেই কারণেই আইপিএল বাতিল করতে বাধ্য হয় বিসিসিআই।

বাতিল হয়ে গিয়েছে আইপিএল। কিন্তু প্রশ্ন উঠেছে আইপিএলে খেলতে আসা ক্রিকেটার এবং এই টুর্নামেন্টের সঙ্গে যুক্ত বিভিন্ন সদস্যদের সুরক্ষিত ভাবে কী ভাবে বাড়ি ফেরত পাঠানো হবে? সেই দায়িত্ব নিয়েছে বিসিসিআই।

বিসিসিআই-এর তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, সকলকে সুরক্ষিত ভাবে বাড়ি পাঠানোর তোড়জোড় তারা শুরু করে দিয়েছে। আইপিএলের তরফে সংবাদমাধ্যমকে একটি বিবৃতি দেওয়া হয়েছে। তাতে বলা রয়েছে, ‘সব প্লেয়ারকে বাড়ি ফেরানো হচ্ছে। বিসিসিআই তাদের সাধ্যমতো সব ব্যবস্থা করছে। যাতে আইপিএলে অংশ গ্রহণকারীদের সুরক্ষিত ভাবে বাড়ি পাঠানো যায়।’

আইপিএল টিমগুলির উপর করোনা যে ভাবে থাবা বসিয়েছে, তার জেরেই একের পর এক ম্যাচ বাতিল হয়ে যেতে শুরু করে। স্বভাবতই টুর্নামেন্ট এগিয়ে নিয়ে যাওয়াটাই অসম্ভব হয় পড়ে। সেই কারণেই আইপিএল বাতিল করতে বাধ্য হয় বিসিসিআই।

আসলে সোমবার সকাল থেকেই আইপিএলের চিত্রটা বদলাতে শুরু করে। প্রথমে কলকাতা নাইট রাইডার্সের কেকেআর-এর তারকা স্পিনার বরুণ চক্রবর্তী ও পেসার সন্দীপ ওয়ারিয়রের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ্যে আসে। তার পরই স্থগিত হয়ে যায় কলকাতা নাইট রাইডার্স বনাম রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর ম্যাচ। বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে খবর পাওয়া যায় চেন্নাই সুপার কিংসের দুই সদস্যও করোনায় আক্রান্ত। তার মধ্যে রয়েছেন বোলিং কোচ লক্ষ্মীপতি বালাজিও। এর পরেই শোনা যায়, দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামের মাঠকর্মীরা করোনায় আক্রান্ত।

মঙ্গলবার বেলার দিকে জানা যায়, সানরাইজার্স হায়দরাবাদের ঋদ্ধিমান সাহা এবং দিল্লি ক্যাপিটালসের অমিত মিশ্রও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। সব মিলিয়ে আইপিএল ম্যাচের আয়োজন করাটাই বড় সমস্যার হয়ে দাঁড়ায়। একের পর এক ম্যাচ স্থগিত হতে শুরু করে। পুরো পরিস্থিতি হাতের বাইরে বেরিয়ে যাচ্ছে দেখার পরই আইপিএল বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয় বিসিসিআই।