নিজস্ব প্রতিনিধি :-

 

সোনাগাজীর পাইকারী ঔষধ বিক্রয়ের সবচেয়ে বড় প্রতিষ্ঠান সোনালী ফার্মেসী থেকে আনুমানিক ২০ লাখ টাকার ঔষধ চুরি করে বিক্রির অভিযোগে সোনাগাজী মডেল থানার সামনে অবস্থিত নয়ন মেডিকেল হলের মালিক জহরলালের ছেলে চোর নয়নের ৮লাখ টাকা ও তার সহযোগী (সোনালী ফার্মেসীর কর্মচারী) চোর পিয়াস শর্মা’কে ৪লাখ টাকা সহ মোট ১২লাখ টাকা জরিমানা করেছে শালিসদার যুবলীগ নেতা নাছির উদ্দিন অপু সহ সোনাগাজী বাজার বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দ।

 

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, সোনালী ফার্মেসির দোকান কর্মচারী পিয়াস শর্মা চুরি করে কিছু ঔষধ এনে জহরলালের মালিকানাধীন নয়ন মেডিকেল হলে এনে অর্ধেক দামে বিক্রি করে, পরে নয়ন ঐ দোকান কর্মচারী পিয়াসকে ভয়ভীতি দেখিয়ে জিম্মি করে গত ২বছর ধরে ঐ দোকান থেকে ঔষধ সরিয়ে এনে বিক্রি করতে বাধ্য করে। ১৭ই জুন সোনালী ফার্মেসী কর্তৃপক্ষ চুরির বিষয়টি টের পেয়ে চোর পিয়াসকে হাতেনাতে ধরে।

 

এরপর সোনাগাজী বাজার বণিক সমিতির নিকট ঘটনা জানালে তারা মিমাংসা করার জন্য ৩/৪ দফা শালিস বৈঠকে বসে। গত ২৩ জুন শালিসে নয়ন মেডিকেল হলের মালিক জহরলালের ছেলে নয়ন ও দোকান কর্মচারী পিয়াসকে দোষী সাব্যস্ত করে তাদের দুজনের ১২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। নয়ন মেডিকেল হলের মালিক জহরলাল শালিসদার ও গণমাধ্যম কর্মীদের নিকট ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন সোনালী ফার্মেসী কর্তৃপক্ষ ও সোনাগাজী বাজার বণিক সমিতির সভাপতি নুরনবী বিএসসি। শালিসদার নাছির উদ্দিন অপু জানান- সোনালী ফার্মেসীর বিপ্লব আমার ভাড়াটিয়া, ঘটনার শালিস করেছে বাজার বণিক সমিতি, আমিও ঐ শালিসে উপস্থিত ছিলাম।

 

এই চাঞ্চল্যকর চুরির ঘটনায় সোনাগাজী বাজারের অলিতে গলিতে সর্বত্র আলোচনা সমালোচনার ঝড় বইছে। দোষীদের আরও কঠোর বিচার দাবি করছেন সোনাগাজী বাজারের ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ।