ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার দক্ষিন পুর্ব চর ছান্দিয়া ওয়াপদা কলোনীতে গত ১৭এপ্রিল তাসলিমা বেগম ও আকলিমা আক্তার নামের দুই গৃহবধুর ওপর হামলা করেন পৌর জামায়াতের আমির কালিমুল্লাহ ও তার সহযোগি জসিম উদ্দিনের নেতৃত্বে স্থানীয় কয়েকজন সন্ত্রাসি।

এ ঘটনায় ২১ এপ্রিল কালিমুল্লাহকে প্রধান আসামি করে থানায় মামলা করেন আহত গৃহবধু তাছলিমা বেগম । এরই জেরে আজ বৃহষ্পতিবার সকাল ১১টায় জিরোপয়েন্টে পুলিশের উপস্থিতিতে মানববন্ধন হয়।

মানববন্ধন চলাকালে দুগ্রুপের সংঘর্ষে অন্তত ১১জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে মোঃ রিয়াদ, রহমত উল্লাহ, মাওলা,, জসিম, রোকেয়া বেগম, তাসলিমা আক্তার ও আকলিমা আক্তার সোনাগাজী হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

আহত সাবেক মেম্বার রোকেয়া বেগম জানান, ওই দুই গৃহবধু ও তাদের বয়োবৃদ্ধ মা রুপিয়া বেগম থানায় যাওয়ার সময় মানববন্ধন থেকে গোলাম মাওলা ও জসিমগংয়ের নেতৃত্বে হামলা করা হয়।

গোলাম মাওলা জানান, কলোনীতে বিশৃঙ্খলা ও মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির প্রতিবাদে জিরোপয়েন্টে মানববন্ধন করে এলাকাবাসি। শান্তিপুর্ন মানববন্ধন রোকেয়া মেম্বারের নেতৃত্বে হামলা করে।

এতে কয়েকজন আহত হয়। তাদেরকে সোনাগাজী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এসময় পুলিশ নীরব দর্শকের ভুমিকা পালন করে। সোনাগাজী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবদুর রহিম সরকার জানান, অনুমোদন ছাড়াই সংক্ষিপ্ত মানববন্ধন হয়।

দু-গ্রুপে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটলে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়া হয়।