ফেনীর ছাগলনাইয়ায় কৃষি জমির টপসয়েল কেটে বিক্রির মহোৎসবে মেতেছে ভুমি দুস্যরা। ১৫ মার্চ মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা প্রসাশনের পক্ষ থেকে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় একটি মাটি কাটার স্কেবেটর জব্দ করে প্রশাসন। প্রশাসন আসছে এমন খবর পেয়ে ভুমি ও মাটি দুস্যরা পালিয়ে যায়।

 

ছাগলনাইয়া উপজেলায় আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে দিনরাত কৃষি জমির মাটি কেটে বিক্রি করছে এক শ্রেণীর ভুমি দুস্য। এই ভুমি দুস্যরা নির্দিষ্ট ইটভাটার মালিকদের কাছে কৃষি জমির মাটি বিক্রি করছে দেদারছে। । ইতিমধ্যে এ ছাগলনাইয়া উপজেলায় কৃষি জমিতে অসংখ্য পুকুর খনন করেছে ওই চক্র। এতে কৃষি জমির টপসয়েল নষ্ট হয়ে আশংকাজনক হারে কমছে কৃষি জমি। অবৈধভাবে টপসয়েল বিক্রেতাদের ঠেকাতে তৎপর ছাগলনাইয়া উপজেলা প্রশাসনও।

 

১৫ মার্চ মঙ্গলবার দুপুর আনুমানিক ১২টায় ছাগলনাইয়া উপজেলার ৮নং রাধানগর ইউনিয়নের নিজপানুয়া গ্রামে কৃষি জমির টপসয়েল কাটার খবর পেয়ে অভিযান পরিচালনা করেন ছাগলনাইয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) হোমায়রা ইসলাম।  অভিযানে ছাগলনাইয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) হোমায়রা ইসলাম মাটি কাটার একটি স্কেবেটর  জব্দ করে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন’র জিম্মায় রেখে আসেন এবং মাটি কাটায় অভিযুক্ত ব্যক্তিদের দ্রুত উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে হাজির হওয়ায় নির্দেশ দেন। অবৈধভাবে কৃষি জমির মাটি কেটে অবৈধ ইটভাটায় বিক্রি করছে এক শ্রেণীর ভুমি দুস্যরা। উপজেলার ৮নং রাধানগর ইউনিয়নের উত্তর কুহুমা গ্রামে রয়েছে অনুমোদনহীন ও পরিবেশ ধ্বংসকারী ৩টি ব্রীক ফিল্ড, এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গড়ে উঠেছে পরিবেশ নষ্টকারী ব্রীক ফিল্ড। তাদের হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

 

 

এ বিষয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) হোমায়রা ইসলাম টাইমস বাংলা নিউজকে জানান, অভিযান পরিচালনা করে ১ টি স্কেবেটর জব্দ করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে কাউকে পাওয়া না যাওয়ায় জরিমানা করা সম্ভব হয়নি।

 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রাধানগর ইউপি চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ও ছাগলনাইয়া থানার এসআই মনির হোসেন।