নিজস্ব প্রতিবেদকঃ- 

 

ঈদের তৃতীয় দিনে ইউটিউবে অবমুক্ত হয়েছে প্রবীর রায় চৌধুরী পরিচালিত ‘বাবা তোমাকে ভালোবাসি’ শিরোনামের ঈদের একটি বিশেষ নাটক। এরই মধ্যে আলোচনায় এসেছে নাটকটি।

প্রবীর রায় চৌধুরীর পরিচালনায় এই নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন আবুল হায়াত, মামুনুর রশীদ, ফজলুর রহমান বাবু, জোভান আহমেদ জোভান, তাসনিয়া ফারিন ও সামিয়া অথৈ।

ভিন্ন ধরণের গল্পে নির্মিত নাটকটি রিলিজের পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে।

আলোচনার পাশাপাশি যেভাবে দর্শকরা তাদের ইতিবাচক মন্তব্যগুলো জানাচ্ছেন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ঠিক একইভাবে বাদ যায়নি নাটকটির প্রধান একটি চরিত্রে কাজ করা অভিনেতা ফারহান আহমেদ জোভান ও, জোভান নিজেই নিজের ফেসবুক ওয়ালে ‘বাবা তোমাকে ভালোবাসি’ নিয়ে নিজের মনের ভাব প্রকাশ করেন। তিনি বলেন,

  • আমি জোভান, একজন অভিনেতা।

“বাবা তোমাকে ভালোবাসি” এই নাটকটিতে অভিনয় করার জন্য যখন প্রবীরদা আমাকে বলে, গল্পটা শুনে আমি তখন অতটা কনফিডেন্ট ছিলাম না। কারন আমি কনফিউজড ছিলাম যে চরিত্রটি আমি ঠিকঠাক মতো করতে পারবো কিনা। এই নাটকের সবচাইতে ভাইটাল একটা দৃশ্য ছিল, সেটা হচ্ছে শেষ দৃশ্যটা।

ডিরেক্টরের কাছে সেটার ব্রিফিং শুনে বাসায় গিয়ে মায়ের সাথে শেয়ার করি। শেয়ার করে হাসতে হাসতে বলি মা, আমার ডিরেক্টর মনে হয় আমাকে মিস কাস্টিং করছে। কারন, আমি নিজে আমার বাবাকে ১৪ বছর যাবত দেখি না, বাবার সাথে আমার বড় একটা দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে, যেহেতু সে USA থাকেন, তার উপর সে খুব Introvert টাইপের একটা মানুষ আর আমিও পারসোনাল লাইফে খুব Introvert টাইপের একটা মানুষ। তার চেয়েও বড় কথা গত ৫-৬ বছর যাবত তার সাথে আমার কথাই হয়না।
তো আমি যখন মাকে গিয়ে বললাম দাদা এমন একটা গল্পের জন্য এপ্রোচ করছে যেখানে বাবাকে বলতে হবে যে বাবা, তোমাকে ভালোবাসি, যেটা আমি নিজেও কখনো বলিনি। কারণ আমি একটা Middle Class ফ্যামিলির ছেলে, সেদিন মা আমার কথা শুনে শুধু একটা হাসি দিয়েছিল ..

আল্লাহর রহমতে আমি যখন সিনটা করতে যাই আমার মনে হচ্ছিল ফজলুর রহমান ভাই আমার বাবা, আর আমি ১৪ বছর পর আমার বাবাকে সামনে পেয়েছি, আর আমার বাবাকে বলছি আমি তাকে কতটা ভালোবাসি। আমি শুধু ডিরেক্টরকে বলছিলাম যে আমার মতো করে আমি একটা বার দেই, আপনি মাঝখানে কাইটেন না, আপনি যদি Satisfied না হন, সিনটা করার পর বইলেন.. দাদা অনেক খুতখুতে একজন ডিরেক্টর, আমি তার সাথে এই নিয়ে ৮ নাম্বার কাজ করছি। তো আমি তাকে যতদুর চিনি শট শেষের পর আমি শিওর ছিলাম যে, সে কারেকশন দিবে। কিন্তু আলহামদুলিল্লাহ সে তো কারেকশন দেয় নি, শট শেষে আমি দেখি তার চোখে পানি। তারপর নাটকটা দেখার সময় আমার পুরো ফ্যামিলি কেদেছে, সাথে আমিও। এটা আমার জন্য একটা Big Achievement 😊।

  • এত এত আলোচনার পাশাপাশি দর্শকরা তাদের ইতিবাচক মন্তব্যও জানাচ্ছেন ব্যাপক ভাবে। অসংখ্য বার্তার মধ্যে গুটিগয়েকটি তুলে ধরার চেষ্টা করা হলো। যেমন- শান্তা খান নামে একজন দর্শক তার ফেসবুক দেয়ালে নাটক দেখার পর তার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে তিনি লিখেছেন…

ঈদের নাটক গুলোর মধ্যে বেশি আকর্ষন ছিলো এই নাটকটা নিয়ে, তাই নাটক দেখতে বসে প্রথমেই এটা দেখে ফেললাম।

কি বলবো আমি বলতে পারেন? আমার চোখে পানি কিবোর্ড এর দিকে তাকাচ্ছি সব কিছু ঝাপসা দেখতেছি আমি। যারা আমার এই লিখা গুলো পড়বেন তাদের বলছি হ্যাঁ আমি কান্না করছি এবং এই চোখের পানি মুছে বার বার লিখা গুলো লিখতেছি।

বাবা এমন একটা নাম যিনি সব কিছু স্যাক্রিফাইজ করে সন্তানের জন্য করে যাবে সব, কিন্তু সেটা মুখ ফুটে কখনো বলবেনা যে আমি এটা করেছি বা ওটা করেছি..তাদের চিন্তা একটাই যাতে সন্তান ভালো থাকে ব্যাস আর কিচ্ছু চাইনা তাদের! কিন্তু আমরা কখনো বলেছি “বাবা তোমাকে ভালোবাসি”? বলিনি আর কিভাবেই বলবো আমরা প্রথমত বাঙ্গালি, দ্বিতীয়ত মধ্যবিত্ত পরিবারের বসবাস বেশি এখানে, আর আমরা মধ্যবিত্তরা চাইলেই যেমন কারর কাছে হাত পেতে দাঁড়াতে পারিনা সংকোচের জন্য, তেমনি নিজের পরিবার অথবা স্পেসিফিক ভাবে বলা যায় “বাবা-মা”- কে ভালোবাসি কথাটা বলতে পারিনা চাইলেই..

এই নাটকটা সেই বাধ ভেংগে দিয়েছে সাহস দিয়েছে হ্যাঁ গিয়ে বলো বাবা তোমাকে ভালোবাসি ❤️।

কিছু নাটক আছে যেটা ভিউ দিয়ে জাজ করা যায়না, যায়না মানে কখনোই যাবেনা। এরকম নাটক একবারই আসবে এসে আপমার মন ছুঁয়ে দিয়ে চলে যাবে, এবং আপনার মন ছুঁয়ে যাওয়া নাটকের লিস্ট বলতে বললে “বাবা তোমাকে ভালোবাসি” নাটকটা আপনি নিজের অজান্তে বলতে বাধ্য হবেন, যার জন্য ধন্যবাদ দিবো এই নাটকের পরিচালক প্রবীর দা কে, স্যালুট দাদা ❤️।

আমরা ইতিমধ্যে জেনে গিয়েছি যে, লাস্ট সিনটা নাটকের যেটা আমাদের মন কেড়েছে সেই নাটকের সিনটা জোভান ভাইয়া নিজের মতো করে শর্ট দিয়েছে যার কান্না, ইমোশন সব কিছু ছিলো রিয়েল। যার জন্য আমাদের দেখতেও রিল না রিয়েলেই অনুভব হয়েছে।

জোভান ভাইয়া ইউ আর সামথিং ম্যান। আমার লিখে দেওয়া দুই চারটা কথা দিয়ে তোমাকে ডিস্ক্রাইব করা যাবেনা, ভালোবাসা তোমার জন্য সবসময়, এভাবেই এগিয়ে যাও।

ফারিন আপুও এখানে অসাধারণ অভিনয় করেছে। এবং তিনজন লিজেন্ডারি আর্টিস্ট যারা ছিলেন তাদের নিয়ে বলার সাহস আমি রাখিনা তারা তো তারাই।

যারা এখনো নাটকটি দেখেননি প্লিজ একবার হলেও দেখবেন আপনাদের বাবার জন্য, দেখবেন বাধ ভেংগে বাবাকে গিয়ে বলবেন ভালোবাসি এবং হ্যাঁ প্লিজ বাবা বেঁচে থাকতে তার মর্মটা বুঝবেন এবং একবার হলেও ভালোবাসি কথাটা বলবেন।

ধন্যবাদ টিম “বাবা তোমাকে ভালোবাসি”।

  • দর্শক মাতানো মনোমুগ্ধকর এই নাটক টির আলোচনা ছড়িয়ে গেছে বাংলাদেশের গন্ডি পেড়িয়ে পশ্চিম বঙ্গ পর্যন্ত। অসংখ্য বার্তা এসেছে সুদূর কলকাতা থেকেও, যেমন- সুষ্মিতা মন্ডল নামে একজন লিখেছেন…

আমরা খুব সহজেই নিজেদের জীবনের পছন্দের মানুষকে “ভালোবাসি” কথাটা বলতে পারি। কিন্তু সেই একই কথাটা কখনো হয়তো আমাদের মা, বাবা কে বলতে পারিনা। বড়ো হওয়ার সাথে সাথে নিজেদের অজান্তেই নানা কারণে কেনো যেন এই সম্পর্ক গুলোর মধ্যে সুপ্ত একটা দূরত্ব তৈরি হয়ে যায়। যা নিয়ে আমরা সেভাবে কোনো চিন্তা করিনা।
আমিও আমার জীবনের ১৫ টা বছর সময় পেয়েছিলাম বাবার অনুভূতি, তার জীবনের ইচ্ছাগুলো জানার বোঝার কিন্তু আমি বেশী একটা ভাবিনি কখনো, এটা নিয়েও যে ভাবতে হয় সেইটাই বুঝিনি। আর “ভালোবাসি” কথাটা বলা অনেক দূরের কাহিনী।

সম্প্রতি Director প্রবীর রায় চৌধুরী দাদা প্রতিবারের মতোই মানুষের জীবনের সাধারণ ঘটনাকে অসাধারণ ভাবে নির্মাণ করেছেন আর তার নাম হলো “বাবা তোমাকে ভালোবাসি”। এই গল্পটা তে Actor জোভান স্যারের Character টার মধ্যে হয়তো আমরা বেশিরভাগ মানুষই জড়িয়ে আছি। সহজেই হয়তো আমাদের মনের মধ্যে থাকা ভালোবাসার কথাটা বাবাকে বলে উঠতে পারছি না। তাই আমার মতো সময় নষ্ট না করে Please একবার নিজেদের বাবাকে “ভালোবাসি” কথাটা বলে দিন। তাদের অনুভূতি, চাওয়া – পাওয়া গুলোর কথা সময় করে ভেবে দেখুন।

ভালোবাসি এই কঠিন কথাটা সহজে বলার জন্যে YouTube এ অবশ্যই দেখুন “বাবা তোমাকে ভালোবাসি” নাটকটি। জোর দিয়ে বলতে পারি দেখার পর আপনার কাছে “ভালোবাসি” বলাটা আর কঠিন হবে না। শেষে জোভান স্যারের Dialogue গুলো শুনে আর তার কান্না অনুভব করে আপনার চোখেও জল আসবে।

আমার বলতে না পারা কথা গুলো আমাকে এতো এইভাবে অনুভব করানোর জন্যে ধন্যবাদ Probir Roy Chowdhury দাদা এবং Farhan Ahmed Jovan স্যার।
আপনাদের জন্যই গল্প টা এতটা গভীর ভাবে মন ছুঁয়েছে।

  • ইকবাল হোসেন সাব্বির নামে এক দর্শক নির্মাতা প্রবীর রায় চৌধুরী সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত মত প্রকাশ করে বলেন…

প্রিয় Probir Roy Chowdhury ভাইয়া আপনার কাজ করা এই নিয়ে ৪ টা নাটকে চোখের পানি ঝড়েছে 🙃 ইমোশনাল হয়েছি খুব বেশি, বিশেষত্ব ৪ টা কাজে। বেস্ট ফ্রেন্ড সিরিজ (1-3) আর এখন ‘বাবা তোমাকে ভালোবাসি’। এছাড়া প্রতিটা কাজই জাস্ট মুগ্ধ করেছে প্রতিবার। প্রিয় দাদা আপনার কাছে মন থেকে একটা রিকুয়েষ্ট করবো আপনি কাজে ধারাবাহিকতা আনুন প্লিজ…

অপেক্ষায় থাকবো সবসময়ই 🥰🖤।

“নাটকটা দেখে মন ছুয়ে গেলো। আসলে সব সন্তান এ তার বাবাকে অনেক বেশি ভালোবাসে কিন্তু কখনো জড়িয়ে দরে বলতে পারে না। যে বাবা আমি তোমায় অনেক ভালোবাসি। আর যারা এ কথাটা বলতে পারে তারা অনেক ভাগ্যবান।”

 

  • ফারদিন রাফি নামে একজন দর্শক লিখেছেন…

আমার ১৮ বছর জীবনে কখনো বলা হয়ে ওঠেনি বাবা তোমাকে ভালোবাসি কথাটি। কিন্তু বাবা মাকে সাথে নিয়ে “বাবা তোমাকে ভালোবাসি” নাটকটি দেখার পর কান্না চোখে বাবাকে বলে দিলাম বাবা তোমাকে ভালোবাসি, বাবা কিছুক্ষণ ইমোশনাল ভাবে তাকিয়ে বুকে টেনে নিলো। আপনারা যারা আজও বাবাকে বাবা তোমাকে ভালোবাসি কথাটি বলতে পারেননি তারা নাটকটি দেখে আসবেন। দেখবেন আপনিও আমার মতো বাবাকে না বলা কথাটি বলে দিতে পারবেন।

  • তানজিদা ইসলাম নামে এক দর্শক প্রকাশ করে বলেন…

একটি মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তানদের কাছে সব চাইতে কঠিন আর সাহসিকতার কাজ বাবাকে একবার ভালোবাসি কথাটা বলতে পারা। আর অন্যদিকে বাবাদের কাছে সবচাইতে আনন্দের ব্যাপার হচ্ছে ছেলেমেয়েদের মুখে ভালোবাসি কথাটা একবার শুনতে পাওয়া, কারণ পরিবারের সবচাইতে অবহেলিত আর অভিমানী মানুষটা হয়তো বাবা। যিনি কখনো নিজের ভালোবাসাটা সরাসরি প্রকাশ করতে পারেন না কিন্তু নিজের যৌবন, সব হাসি, আহ্লাদগুলো বিসর্জন দিয়ে নিরলসভাবে কাজ করে যান পরিবারের সকলের মুখে হাসি ফুটাবোর জন্য বাবা একটি গাছের মতো ছায়া দেয়, ফল দেয়। বেঁচে থাকতে বাবা কি জিনিস বুঝিনি কখনো, তাই মৃত্যুর পর হেয় হয়ে বারবার লোকটার কাছে ক্ষমা চেয়ে আসি। বাবা তোমাকে ভালোবাসি নাটকটা দেখার সময় চোখে পানি চলে এসেছিলো, বাবাকে কখনো বলা হয়নি বাবা তোমাকে ভালোবাসি তাই আজ নাটকটি দেখার পর বলে ফেললাম, বাবারা খুব চাপা স্বভাবের হয় কখনো মুখ ফুটে কিছু বলতে পারে না।

 

  • আলাউদ্দিন মাহমুদ আরিয়ান লিখেছেন…

বাবা কে ভালোবাসি কথাটা বলতে পেরেছি আমি সত্যি আনন্দিত, এই ঈদে আমার দেখা সেরা নাটক। ‘বাবা তোমাকে ভালোবাসি’।

  • আরিফুল ইসলাম লিখেছেন…

“বাবা তোমাকে ভালোবাসি” ডিরেক্টরঃ আমার খুব প্রিয় Probir Roy Chowdhury দাদা। আমি একটি ঘোরের মধ্যে আছি চোখের কোণায় পানি জমা রেখে রিভিউ লিখছি।বাবাকে ভালোবাসেন কথাটা কি কখনো বলতে পেরেছেন?

বাবারা বড্ড অভিমানি হয়। কখনো বুঝতে দেইনা ভালোবাসা কখনো প্রকাশ করেনা নাটকের সংলাপের যাস্ট এটুকুই বলব। স্পয়লার করে দিবনা।চমক গুলো নাটক দেখেই বুঝবেন পরিবারের সবাইকে নিয়ে নাটকটি দেখুন কাঁদতে বাধ্য। প্রবীর দাদা। ইউ বিউটি ম্যান তিনজন লিজেন্ড নিয়ে একটি নাটক নির্মাণ যেন তেন ব্যাপার নয়।মাঝে মাঝে বিজ্ঞাপন না আসলে একবারের জন্যও বুঝতে পারতামনা যে নাটক দেখছি। ধন্যবাদ সকল অভিনেতা কে তিনজন লিজেন্ড। ফজলুর রহমান বাবু, আবুল হায়াত, মামুন রশীদ, ওনাদের অভিনয় সবসময় যেন বাস্তবের মতই, ওনারা এতই গুণী অভিনেতা যে, ওনাদের চরিত্র যেন বাস্তবের মতই মনে হবে।

‘বাবা তোমাকে ভালোবাসি’ নাটকটি প্রচারের পর দারুণ সাড়া ফেলেছে। অনেকেই ফেসবুকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন এর নির্মাতা ও সংশ্লিষ্টদের।

উল্লেখ্য, প্রবীর রায় চৌধুরীর রচনা-পরিচালনায় ‘বাবা তোমাকে ভালোবাসি’ নাটকটি (২৩ জুলাই) সিডি চয়েস-এর ইউটিউব চ্যানেলে অবমুক্ত হয়েছে।