টাইমস বাংলা নিউজ ডেস্ক :-

 

বাংলাদেশ কে ধর্মীয় সম্প্রীতির উজ্জ্বলতম উদাহরণ হিসেবে আখ্যায়িত করে ওআইসির মহাসচিব বলেন, যে মুহূর্তে দেশটি তার স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী পালন করছে সে সময় তারই কন্যা একই ভাবে সমাজ থেকে বৈষম্য দূর করতে ক্লান্তিহীন সংগ্রাম করে যাচ্ছেন এবং একই সঙ্গে পিতার সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্নও বাস্তবায়ন করছেন।

 

বাংলাদেশকে ধর্মীয় সম্প্রীতির উজ্জ্বলতম উদাহরণ হিসেবে অভিহিত করেছেন ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থা অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কো-অপারেশনের (ওআইসি) মহাসচিব ইউসেফ বিন আহমাদ আল-ওথাইমিন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে আয়োজন করা ১০ দিনের অনুষ্ঠানমালার তৃতীয় দিনে এক ভিডিও বার্তায় এ কথা বলেন তিনি।

ভিডিও বার্তায় সংস্থাটির মহাসচিব বলেন, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ একটি স্বাধীন দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে এবং মহান নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নেতৃত্বে আত্মপ্রকাশ করা এ দেশটি ১৯৭৪ সালে ওআইসিতে যোগ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করে।

‘এরপর থেকেই সংগঠনের সব কর্মসূচিতে বাংলাদেশ সক্রিয় এবং অর্থবহভাবে অংশগ্রহণ করছে। নতুন জন্ম নেয়া দেশের মহান নেতা ১৯৭৪ সালে ওআইসির দ্বিতীয় সামিটে অংশ নেন, উদ্দেশ্য ছিল মুসলিম উম্মাহর সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়ন।’

তিনি বলেন, ‘১৯২০ সালের মার্চে জন্ম নেয়া জাতির পিতা তার সারা জীবন বৈষম্যের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছেন এবং তার দেশের জনগণের জন্য সোনার বাংলা গড়ে তুলতে নিজের জীবনকে উৎসর্গ করেছেন। তার এ অবদান সারা জীবন মনে থাকবে।

তিনি আরও বলেন, ‘যে মুহূর্তে দেশটি তার স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী পালন করছে, সে সময় তারই কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একইভাবে সমাজ থেকে বৈষম্য দূর করতে ক্লান্তিহীন সংগ্রাম করে যাচ্ছেন এবং একই সঙ্গে পিতার সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্নও বাস্তবায়ন করছেন। বাংলাদেশ সারা বিশ্বে ধর্মীয় সম্প্রীতি ও শান্তির উজ্জ্বলতম উদাহরণ।’

 

টিবিএন/ আইএইচএস