ফেনীর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন’র হাতের ছোঁয়ায় বদলে গেলো ফেনী পুলিশ বলে মন্তব্য করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্ট্যাস্টার্স দিয়েছেন ফেনী পুলিশের কিউআরটি টিমের সদস্য মোঃ আশিকুর রহমান। আবেগগণ ও তথ্যবহ স্ট্যাস্টার্সটি ১১ মার্চ দুপুরে মোঃ আশিকুর রহমানের এফবিতে দেওয়া হয়, স্ট্যাস্টার্সটি পোষ্ট করার সাথে সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়।
ফেনীর পুলিশ সুপার মামুন'র হাতের ছোঁয়ায় বদলে গেলো ফেনী পুলিশ

ফেনীর পুলিশ সুপার মামুন’র হাতের ছোঁয়ায় বদলে গেলো ফেনী পুলিশ

পাঠকদের জন্য স্ট্যাস্টার্সটি হুবহু তুলে ধরা হলো:
একজন এসপির গল্প!!
যার হাতের ছোঁয়ায় বদলে গেলো ফেনী পুলিশ!!
ফেনী জেলার জনপ্রিয় পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন একটি সাহসী ও মানবিক সম্মুখযোদ্ধা সৈনিকের নাম। যিনি ফেনী পুলিশকে নিয়ে সৃষ্টি করছেন ইতিহাসের নতুন অধ্যায়। আশার প্রদীপ জ্বেলে দিয়েছেন জনতার মনে। ভালোবাসায় কেড়ে নিয়েছেন ফেনীবাসীর মন। যার আন্তরিকতা, দক্ষ ও সাহসিকতায় উজ্জল হচ্ছে পুলিশ বাহিনীর ভাবমূর্তি।
যা অতিতে ছিল না। পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন আস্থা ও ভরসার এক বাতিঘর। আমজনতার মধ্যে এক সমীহের নাম যেন তিনি। কথায় কাজে অমিল খোঁজে পায়নি কেউ। কাজের বলিষ্টতায় মানুষের মধ্যে আজীবন স্মরনীয় হয়ে থাকবেন তিনি, তৃপ্তির গর্বিত আ্ওয়াজ তাকে নিয়ে অনেকের মাঝে। সেবার এক অনন্য অইকন হয়ে দাড়িয়েছেন তিনি।
তেমনি সন্ত্রাস, জঙ্গি গোষ্ঠীর, মাদক কার বাড়ি, চোর ডাকাত, ইভটিজিং, আধিপত্য বিস্তার, অপশক্তি আতংকে নাম পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন।
ফেনীবাসীর নিরাপত্তার ও সন্ত্রাস দমনের জন্য ফেনীতে কুইক রেসপন্স টিম (কিউআরটি) গঠন করেছে পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন। যেকোন সন্ত্রাসী কার্যকলাপসহ সব ধরনের সহিংস পরিস্থিতি মোকাবেলা ও জনসাধারণের জান-মালের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিতে প্রস্তুত থাকবে শারীরিক ও মানসিকভাবে কিউআরটি টিম।
শারীরিকভাবে দক্ষ এবং বিশেষভাবে প্রশিক্ষিত দলটির নিয়ন্ত্রণ কর্তা হচ্ছেন স্বয়ং পুলিশ সুপার নিজেই।
ফেনী শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে তিনি বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের পাশাপাশি অপরাধীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন।
জনবান্ধব পুলিশিংয়ের মাধ্যমে এলাকার সকল শ্রেনী পেশার মানুষের সাথে মতবিনিময় সভা সমাবেশ করে জঙ্গি ও গুজব বিষয়ে মানুষকে সচেতন করতে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। মাদক, সন্ত্রাস, ডাকাত সহ অপরাধীদের বিরুদ্ধে চিরুনী অভিযান পরিচালনা করে অপরাধীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। জেলা পুলিশের শীর্ষ এই অফিসারের কঠোর নির্দেশে।
পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন এর ফেনী যোগদানের চার মাস পাঁচদিনের কিছু আলোকিত কর্মজীবন নিয়ে কিছু কথাঃ- যোগদানের পর থেকে ব্যাপক উন্নয়ন মূলক কাজে হাত দেন তিনি পুলিশ লাইন্সের মেসের খাবারের মান উন্নয়ন, মানসম্মত কেন্টিন , পুলিশ লাইন্স সুপারশপ তৈরি। পুলিশ লাইন্সে ভবন গুলো মেরামত কাজসহ পুলিশ লাইনের সামনে প্রতিটি গাছে লাইটিং লাগিয়ে আলোকসজ্জা করে দৃষ্টিনন্দন করেন। পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে প্রতিটি অফিসে টাইলস আধুনিক প্রিন্ট দ্বাড়া সাজসজ্জ করেন ভিতরে বাহিরে ও পুলিশ সুপারের বাসভবনে সুন্দর্য্যস্থাপন করেন। পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সামনে ময়লা পুকুর কে পরিষ্কার করে পাড় বেঁধে ফুলের বাগান তৈরি করে দেন। দৃষ্টিনন্দন এক রেস্টুরেন্টে সহ স্যালুটিং ডাইস তৈরি করে দৃষ্টান্তস্থাপন করেছেন পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন।
পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন ফেনী জেলার সর্বজনের কাছে এক জননন্দিত নাম। ২০২১ সালের ০৫ নবেম্বর তিনি ফেনী জেলার পুলিশ সুপারের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। দায়িত্বভার গ্রহণের পর অল্প কিছুদিনের মধ্যেই ফেনী জনগণের নিকট তিনি ঘনিষ্ট হয়ে যান তার কাজের মাধ্যমে। সহজ সরল নিরীহ জনগণের পুলিশি সেবা প্রাপ্তির সহজলভ্যতা এখন অত্র জেলার মানুষের মুখে মুখে। তাঁর অসাম্য কর্মপ্রচেষ্টায় দেশ ও জাতির কাছে দৃশ্যমান। অন্যদিকে অপরাধীরা এই সৎ পুলিশ অফিসারের নাম শুনলেই ভয়ে আতকে উঠে। বিভাগীয় কার্যক্রমের বিত্তের বাইরেও রয়েছে তাঁর নানাবিধ সামাজিক কর্মদ্যোগ। স্বভাবজাত সৎ, ভালো চরিত্রগুণের অধিকারী মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন এর বণার্ঢ্য ও কর্মজীবন সুধীজনের দৃষ্টিগ্রাহ্য করার প্রয়াসে আমার এ লিখা।
পড়াশোনায় অসামান্য মেধার অধিকারী এসপি মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন। তিনি ২৫ তম বিসিএস পরীক্ষায় কৃতিত্তের সাথে উত্তীর্ণ হলে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার তাঁকে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিসে সহকারী পুলিশ সুপার পদে চাকুরির জন্য মনোনীত করেন। এএসপি হিসাবে বাংলাদেশ পুলিশে যোগদান করে তিনি বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমি সারদা রাজশাহী মৌলিক প্রশিক্ষনে সকল বিষয়ে শ্রেষ্টত্ব অর্জন করেন। বেস্ট ম্যান কাপ লাভ করেন।
এএসপি হিসাবে পুলিশ হেডকোয়ার্টাস, অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার ডিএমপি। বর্তমান আইজিপি স্যার ডিএমপি কমিশনার থাকাকালীন তার স্টাফ অফিসারের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন। এডিশনাল এসপি হিসাবে মুরাদনগর সার্কেল কুমিল্লা। গোপালগঞ্জ জেলা, নারায়ণগঞ্জ জেলা সুনাম সাহসীকতার সাথে কাজ করেছেন।
জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে আইপিও হিসাবে কাজ করেছেন। সুদানের কাজ করেছেন, UNAMID এক্সপার্ট হিসাবে, জর্ডান পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়োগ কার্যকর্মে নেতৃত্ব দিয়ে আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষা মিশনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন।
পুলিশ সুপার ফেনী দায়িত্ব গ্রহনের পূর্বে পুলিশ হেডকোয়ার্টাস এ আইজি এমটি ওয়ার্কশপ এন্ড এআইজি এডুকেশন দায়িত্বে কর্মরত ছিলেন।
পেশাগত জীবনে তিনি দেশে ও বিদেশে বিভিন্ন প্রশিক্ষনে সাফল্যের স্বাক্ষর রেখেছেন।
পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে সোয়াত এবং ভিআইপি প্রটেকশন ট্রেনিং গ্রহন করেছেন। এছাড়া যুক্তরাজ্যে সরকারের মর্যাদাপূর্ন CHEVENING UK GOVERNMENT SCHOLARSHIPS আওতায়, ডিফেন্স একাডেমি UK থেকে SECURITY SECTOR MANAGEMENT POST GRADUATE CERTIFiCATE অর্জন করেছেন।
পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে সরকারি ও বেসরকারি ভাবে ভ্রমন করেছেন পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতী বিভাগ থেকে স্নাতক সম্মান ডিগ্রী করেন। স্নাতক ডিগ্রী সম্মান অসামান্য ডিগ্রী অর্জন করাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর থেকে স্বর্ণ প্রদক অর্জন করেন।
বাংলাদেশ পুলিশে যোগদান পূর্বে তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতী বিভাগের প্রভাষক হিসাবে কর্মরত ছিলেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি বিবাহিত এবং এক কন্যা সন্তানের গর্বিত জনক তার সহধর্মিণী শামীমা আক্তার রুপালী ব্যাংকের সিনিয়র প্রেন্সিপাল অফিসার হিসেবে কর্মরত আছেন।
পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুনের গ্রামের বাড়ী ময়মনসিংহ গৌরীপুর উপজেলা বীর আহম্মদপুর তালুকদার বাড়ি গ্রাম। মাননীয় পুলিশ সুপার মহোদয়ের নেক হায়াৎ ও দীর্ঘ আয়ু কামনা করি মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের দরবারের।
ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছান্তে।
মোঃ আশিকুর রহমান!
কিউআরটি টিম ফেনী।