সোনাগাজীতে সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট জাকির হোসেন একং মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সাজেদুল ইসলাম পলাশ এর নেতৃত্বে প্রতিনিয়ত অভিযান অব্যহত থাকায় গত চার দিনে কঠোর লকডাউনের চিত্র সন্তোষজনক।

উপজেলার তিনটি প্রবেশ পথে তল্লাশী চৌকি বসিয়ে অপ্রয়োজনীয় যানবাহন উপজেলায় প্রবেশ ও বের হতে দেয়া হচ্ছেনা, উত্তরের প্রবেশ পথ ফেনী-সোনাগাজী সডকের ধলিয়া সাইনবোর্ড, পূর্বের প্রবেশ পথ মুহুরী প্রজেক্টের ব্রীজ ও পশ্চিমের প্রবেশ পথ সাহেবের ঘাট ব্রিজ এলাকায় তিনটি পুলিশ টিম এসব তল্লাসী চৌকিতে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাডা পৌর-শহর সহ উপজেলার মতিগঞ্জ ডাকবাংলা বক্তারমুন্সি কাজিরহাট তাকিয়া বাজার, কুঠির হাট, আমিরাবাদ নবাবপুর সহ হাট বাজার গুলোতে সতর্কতামমূলক অভিযান অব্যহত রয়েছে।

সরে জমিন অনুসন্ধানে দেখা গেছে, এসব হাট বাজারে শাক-সবজি মাছ মাংশ সহ নিত্যপন্যের দোকান গুলো উম্মুক্ত মাঠে স্থানান্তর করা হয়েছে। রাস্তায় টুকিটাকি রিক্সা ও সিএনজি ব্যাতিত গনপরিবহন একেবারেই বন্ধ রয়েছে। প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে কোন কোন দোকানি দোকান খোলার চেষ্টা করলেও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গ্রাম পুলিশরা তাদের নিবৃত করার চেষ্টা করছে।

সোনাগাজী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সাজেদুল ইসলাম পলাশ বলেন, লকডাউন বাস্তবায়নে পুলিশ সর্বোচ্ছ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে, কোভিড-১৯ এর এই ক্লান্তিকালে জনগনের জন্য কাজ করতে পেরে আমি গর্বিত। সহকারি কমিশনার ভূমি জাকির হোসেন, লকডাউন প্রতিপালনে জনগন সহযোগিতা করছে বলে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।