রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর থেকে এক নারীসহ দলের চার সদস্যকে আটক করেছেন পুলিশের গোয়েন্দা (গুলশান) বিভাগ (ডিবি)। কামরাঙ্গীরচরের একটি বাসায় টাকা তৈরির কারখানা বানিয়েছিলেন তারা।সেখানে জাল টাকা তৈরি করা হতো। ঈদ সামনে রেখে জাল টাকার তৈরি বাড়ানোর পরিকল্পনা করেছিলেন তারা। পুলিশ বলছে, খালি চোখে দেখে ধরার উপায় নেই তাদের বানানো জাল টাকা।

রোববার বেলা সোয়া ১১টার দিকে তাদের আটক করা হয়। আটকদের কাছ থেকে জাল ৪৬ লাখ টাকা ও জাল টাকা তৈরির সামগ্রী জব্দ করা হয়েছে।

আটক চারজনের দলনেতা হচ্ছেন জীবন নামের এক যুবক। এই দলের দুইজন ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার।তারা হলেন পিয়াস ও ইমাম হোসেন। তাদের ইমাম বরিশাল পলিটেকনিক থেকে নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ারিং ও কম্পিউটার সায়েন্স বিষয়ে ডিপ্লোমা করে কাজ করতেন একটি খ্যাতনামা ফোন কোম্পানিতে নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের। আর পিয়াস বরিশাল সরকারি পলিটেকনিক কলেজ থেকে পাওয়ারের ওপর ডিপ্লোমা করেন।

পুলিশ জানায়, কামরাঙ্গীরচরে জীবনের কারখানার সন্ধান পাওয়ার পর সেই এলাকার একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে দুটি ল্যাপটপ, দুটি প্রিন্টার, হিট মেশিন, বিভিন্ন ধরনের স্ক্রিন, ডাইস, জাল টাকার নিরাপত্তা সুতা, বিভিন্ন ধরনের কালি, আঠা ও স্কেল কাটারসহ জাল টাকা তৈরির আরও অনেক সামগ্রী উদ্ধার হয়।

পুলিশের গোয়েন্দা (গুলশান) বিভাগের উপকমিশনার মশিউর রহমান গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন। এর আগেও জাল টাকা তৈরির অপরাধে ২ বার গ্রেপ্তার হয়েছিলেন জীবন। জেল থেকে বের হয়ে জীবন আবার জাল টাকা তৈরি শুরু করেছেন বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তা।

উপকমিশনার মশিউর রহমান বলেন, বেশ কিছুদিন ধরে জীবনকে পুলিশ অনুসরণ করছিল। অবশেষে তাকে আটক করা হয়েছে।