নিজস্ব প্রতিনিধি <>

গত বছর লকডাউন শুরু থেকে এখন পর্যন্ত ছাগলনাইয়া উপজেলা তিন লক্ষ মানুষকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল।
২০২০ সালের ১৭ মার্চ লকডাউন ঘোষণা করেন সরকার। তখন ছাগলনাইয়াবাসীকে করোনা থেকে রক্ষা করতে উপজেলা চেয়ারম্যান করোনা কুইক রেসপন্সটিম গঠন করেন। করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃতদের দাফন, চিকিৎসা,খাদ্য ও অর্থ সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে মানবতার ফেরিওয়ালা হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন ছাগলনাইয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল।তিনি প্রতি শুক্রবার জুমার নামাজের পর অসহায় মানুষের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ করেন। এতে অসহায় মানুষ গুলো নগদ টাকা পেয়ে খুশি।
উপজেলা চেয়ারম্যান মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল বলেন, ২০১৪ সালের ৫ মে ছাগলনাইয়া উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে শেখ হাসিনার সরকার ছাগলনাইয়া উপজেলার ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। তারই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রীর সাবেক প্রটোকল অফিসার আলা উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম, ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী ও ফেনী-১ আসনের এমপি শিরীন আখতারের সহযোগিতায় ছাগলনাইয়ায় যোগাযোগ, শিক্ষা, সামাজিক ও ধর্মীয় ক্ষেত্রে স্মরণকালের উন্নয়ন হয়েছে।
তিনি জানান, মুহুরী নদীর ওপর মহামায়া ব্রীজ, শান্তিরহাট ভূইয়ারহাট ব্রীজ, করৈয়া ব্রীজ নিমার্ণ করা হয়েছে। ১৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ছাগলনাইয়ায় মডেল মসজিদের নির্মাণ কাজ চলছে। ১৭ কোটি টাকা ব্যয়ে কারিগরি স্কুল এন্ড কলেজের কাজ শুরু হচ্ছে, ৫২ কোটি ২০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে শান্তিরহাট-ফেনী সদর সড়ক নিমার্ণ কাজ চলছে, ২৪ কোটি টাকা ব্যয়ে রানীরহাট-মনুরহাট সড়কের কাজ সম্পন্ন হয়েছে।
২৩ কোট টাকা ব্যয়ে ছাগলনাইয়া-মুহুরীগঞ্জ সড়কের প্রশস্তকরণের কাজ শুরু হয়েছে । ১শ ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে ফেনী নদীর ওপর শুভপুর ব্রীজের কাজ অল্প সময়ের মধ্যে শুরু হবে। ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ছাগলনাইয়া-শুভপুর সড়কের কার্পেটিংয়ের কাজ শেষ হয়েছে। ছাগলনাইয়া সরকারি কলেজের বহুতল ভবনের নির্মাণের কাজ শেষের দিকে।
ছাগলনাইয়া উপজেলার ২৫ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৪০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে, তিনটি কলেজ, ১৫টি মাদ্রাসায় বহুতল ভবন ও বহুতল ভবনের ভিত্তির একতলা ভবন নির্মিত হয়েছে। ২শ ৩০ কিলোমিটার পাকা সড়ক ও সংস্কারের কাজ হয়েছে। এ ছাড়া একই সময়ে অসংখ্য পুল-কালভাট নির্মিত হয়েছে ছাগলনাইয়া উপজেলায় ।
ছাগলনাইয়াবাসীর উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহানুভূতির কারণে ব্যাপক উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর ভিশন ২০৪১ বাস্তবায়ন করে আমরা ছাগলনাইয়াকে একটি উন্নত,সমৃদ্ধ ও আধুনিক উপজেলায় রুপান্তর করতে চান তারা। মুক্তিযোদ্ধা, দুঃস্থ, প্রতিবন্ধী, বয়স্ক, বিধবাসহ বিভিন্ন সামাজিক নিরাপত্তা ভাতা গ্রহণের সুযোগ পেয়েছে ছাগলনাইয়া উপজেলার কয়েক হাজার মানুষ।
নারীর ক্ষমতায়ন, সহাবস্থানের রাজনীতি, বাল্য বিবাহরোধসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ছাগলনাইয়া উপজেলা দেশের একটি মডেল উপজেলা হিসেবে স্বীকৃত। এখনো পর্যন্ত বিএনপির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলাও হয়নি বলেও দাবি তার। ছাগলনাইয়ায় মিথ্যা মামলায় কোন দলের নেতাকর্মীকে হয়রানি সমর্থন করেননি বলেও জানান ।
সামাজিক বিচার-আচারে কখনো দলীয় পরিচয় দেখেন না। মাদকের ব্যাপারে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করছে। দলীয় নেতাকর্মী থেকে শুরু করে যাদেরই মাদকের সাথে সংশ্লিষ্ঠতা পাওয়া যাবে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না বলেও জানিয়েছেন তিনি।
ছাগলনাইয়া উপজেলার সাড়ে তিন লক্ষ মানুষকে নিয়ে নিরাপদ, উন্নত ও সুখী-সমৃদ্ধ জীবন নিশ্চিত করে এক ছাদের নিচে বসবাস করতে চান বলে জানিয়েছেন ছাগলনাইয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল ।