বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের বিচার ও বিয়ের দাবিতে বৃহস্পতিবার বেলা ৩টা থেকে অভিযোগ নিয়ে ছাগলনাইয়া থানায় অবস্থান নিয়েছেন সোনাগাজী উপজেলার এক ছাত্রী। অন্য দিকে ওই ঘটনাকে ষড়যন্ত্র বলে দাবি করছে অভিযুক্তের স্বজনরা।

 

জানা গেছে, ফেনী জেলার সোনাগাজী উপজেলার কাজিরহাট এলাকার মেয়ের (২০) সাথে ঘটনার তিন মাস আগে ছাগলনাইয়া উপজেলার ছয়ঘরিয়া গ্রামের মৃত রুহুল আমিনের ছেলে রফিক উদ্দিন রকির (২৪) সাথে ইমোতে পরিচয়ের সূত্র ধরে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

 

চলতি মে মাসের ২ তারিখে রকির পরিবারের লোকদের দেখানোর কথা বলে ডেকে এনে ছাগলনাইয়া পৌরশহরের একটি বাসায় মেয়েটিকে বিয়ের করার কথা বলে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ।

 

মেয়েটিকে ছেলের পক্ষ পছন্দ করার কথা জানিয়ে কাবিন রেজিস্ট্রির মাধ্যমে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে পরদিন আবারো ডেকে এনে উপজেলার কাশিপুরে এক বাড়িতে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করলে মেয়েটি শোরচিৎকার শুরু করে।

 

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মেয়েটিকে মারধর ও তার মোবাইল ফোন ভেঙে ফেলে রকিবের সহযোগী ফুলগাজী উপজেলার পুরাতন মুন্সীর হাট এলাকার কাজী আজিম বাদশা।

বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, বিচার ও বিয়ের দাবিতে ছাগলনাইয়া থানায় সোনাগাজীর মেয়ে

বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, বিচার ও বিয়ের দাবিতে ছাগলনাইয়া থানায় সোনাগাজীর মেয়ে

২৮ মে শুক্রবার দুপুরে ক্ষতিগ্রস্ত মেয়েটি সাংবাদিকদের জানান, রকি বিয়ের কথা বলে তার সাথে শারীরিক সম্পর্ক করেছে। ছেলেটি তাকে বিয়ে করলে তিনি তার অভিযোগ থেকে সরে আসবেন।

 

উক্ত বিষয়ে ছাগলনাইয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শহীদুল ইসলাম টাইমস বাংলা নিউজকে জানান, আমরা গতকালই (২৮ মে শুক্রবার) মেয়েটির আবেদন জমা নিয়েছি। আজকে মেয়েটি মেডিকেল টেস্ট করে পরিবারের জিম্মায় দিয়েছি। বিবাদীদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের আলোকে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।